Research desk:Researchers from Jiangsu University and Jiangsu Academy of Agricultural Sciences found a hydrothermal approach that is effective in improving a novel rice with potential benefits to patients with diabetes and kidney diseases. The results are reported in Foods journal.

ফিচার প্রতিবেদক:আমাদের দেশের আম রপ্তানীতে একটা স্থবির অবস্থা বিরাজ করছে। দেশের উৎপাদিত আম আমরা নিজেরা খেতে বেশ পছন্দ করি। চাঁপাইনবাবগঞ্জ, রাজশাহী, নওগাঁ, সাতক্ষীরা, মেহেরপুর, দিনাজপুর,কুষ্টিয়া এসব অঞ্চলে উৎপাদিত আম ২-১ দিনের মধ্যেই ঢাকাসহ বৃহত্তর জেলার ভোক্তাদের হাতে চলে আসে এবং সুন্দরভাবে বিক্রয় হয়ে যায়। এই একই আম যখন আমরা রপ্তানির উদ্দেশ্যে প্রস্তুত করি তখন কিন্তু প্রসেসিং-এর যাবতীয় কার্যক্রম সম্পন্ন করতে ৭ থেকে ১০ দিন সময় লেগে যায়। এসব আমের প্রাথমিক স্টোরেজ ক্ষমতা অত্যন্ত স্বল্প মেয়াদী হওয়ায় রপ্তানীতে টেকসই হয় না।

প্রফেসর ড. খান মো: সাইফুল ইসলাম:মিষ্টির দোকানের মিষ্টি খেতে খুবই মিষ্টি। একজন বিদেশি বলেছিলেন “চিনির দলা”। এমনি এমনি কিন্তু মিষ্টি করা হয়নি। অনেক আগে থেকেই দুধ বা দুগ্ধজাত দ্রব্যকে পচনশীলতা থেকে রক্ষা করার জন্য অধিক চিনি যোগ করা হত। একদিকে দুধ অনেক পুষ্টিকর ও একটি অনন্য আদর্শ খাবার হলেও এদেশের গরম আবহাওয়া ও দুধে বিদ্যমান সুষম পুষ্টির উপস্থিতিতে জীবাণু সহজেই বৃদ্ধি পায় যা দুধের পচন সৃষ্টি করে। শীতলীকরনের মাধ্যমে সংরক্ষন ব্যবস্থা না থাকার কারনে দুগ্ধজাত দ্রব্যে অধিক চিনি সংযোগই ছিল পচন রোধের একমাত্র ব্যবস্থা।

ফিচার প্রতিবেদক:সবজি রপ্তানি বহুগুণে বৃদ্ধি করতে হলে মধ্যমেয়াদি ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। মধ্যমেয়াদী পরিকল্পনার ক্ষেত্রে প্রথমে ক্যাপাসিটি বিল্ডিং করতে হবে। সম্প্রতি এ প্রতিবেদকের সাথে আলাপকালে সবজি রপ্তানি উদাহরণ টেনে স্পেনের Almeria নামক একটি এলাকার কথা তুলে ধরেন এসিআই এগ্রিবিজনেস-এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও সিইও ড.এফ এইচ আনসারি।

কৃষিবিদ এস.এম. রাজিউর রহমান, পিএইচডি (ডেইরি সায়েন্স): এতদিন A1এবং A2 দুধ নিয়ে গবেষনার বিষয়টি সবার কাছে দৃষ্টির অগোচরে ছিল। ডেইরী শিল্পে উন্নত দেশগুল, যা মানুষকে জানতে দেয়নি। প্রফেসর কিড উডফর্ড এগ্রি রিসার্স ইউএসএ পত্রিকায় দুধের A1ও A2 কেজিনের উপস্থিতি নিয়ে বলতে গিয়ে বলেছিলেন "there's a devil in the milk" অর্থাৎ যেখানে দুধের ভিতর ভূত। সেটিই আমার আজকের লেখার উপজীব্য তৈরি করেছে।

ডা. মোঃ শাহ্-আজম খান: বর্তমান বাংলাদেশে আগামীর সব থেকে সম্ভাবনাময় ফিডের মার্কেট হলো ক্যাটল ব্যালেন্স পিলেট ফিড মার্কেট। কিন্তু এই সম্ভাবনাময় মার্কেটের সম্ভাবনা শুরু হতে না হতেই স্থবিরতার সম্ভাবনা দেখতে পাচ্ছি। ক্যাটল ব্যালেন্স পিলেট ফিড বিজ্ঞান সম্মত একটি গো-খাদ্য; পাশাপাশি খামারীদের জন্য লুজ দানাদার খাবারের বিকল্প একটি মানসম্পন্ন সাশ্রয়ী খাবার হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু কোম্পানিগুলোর ব্যবসায়িক দৃষ্টিকোণ ও প্রতিযোগিতার কারনে খামারীরা ব্যালেন্স পিলেট খাবার কনসেপ্ট সম্পর্কে বিভ্রান্ত হচ্ছে। কি কি কারন সেটি নিয়েই আজকের আলোচনা-