দি হেগ (নেদারল্যান্ডস), ০৫ জুলাই ২২: বাংলাদেশের ১৭ কোটি মানুষের জন্য খাদ্য নিরাপত্তা টেকসই করতে এবং জলবায়ু পরিবর্তন জনিত জটিলতা মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার বাংলাদেশের কৃষিকে রূপান্তরিত করতে মনোযোগী। এর মধ্যে কৃষিকে জলবায়ু-সহনশীল করা, রাসায়নিক সার ও পানির ব্যবহার কমানো, ডিজিটালাইজড উৎপাদন ও বন্টন, কৃষি-লজিস্টিক খাতকে উন্নত করার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ বদ্বীপ পরিকল্পনার আওতায় দীর্ঘমেয়াদী গবেষণা ও পরিবর্তন আনতে নেদারল্যান্ডসের সাথে নিবিড়ভাবে কাজ করতে আগ্রহী।

এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম:নিরাপদ ও টেকসই পোল্ট্রি উৎপাদনে সরকার সবধরনের সহায়তা দেবে বলে জানিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।

এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম:নেদারল্যান্ডসের আলমেয়ারে চলমান আন্তর্জাতিক হর্টিকালচার এক্সিবিশনে রবিবার (৩ জুলাই) বর্ণাঢ্য কর্মসূচির মাধ্যমে বাংলাদেশ দিবস পালিত হয়েছে। সকালে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে কর্মসূচি শুরু হয়। এরপর এক্সিবিশনের মূল স্টেজে ' সেলিব্রেটিং বাংলাদেশ: ট্রান্সফরমিং এগ্রিকালচার' শীর্ষক দিন ব্যাপী কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়। এতে কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক এমপি,  রাষ্ট্রদূত রিয়াজ হামিদুল্লাহ, এক্সপোর কমিশনার জেনারেল অ্যানেম্যারি জরিটসমা (Annemarie Jorritsma) বক্তব্য রাখেন। একইসাথে, বাংলাদেশি শিল্পীদের পরিবেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম:কৃষিমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. মো: আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, দেশে খাদ্য নিরাপত্তা একসময় বড় চ্যালেঞ্জ ছিল। বর্তমান সরকারের আমলে খাদ্য নিরাপত্তায় অভাবনীয় সাফল্য অর্জিত হয়েছে। দুর্যোগেও দেশে এখন খাদ্য সংকট হয় না।

এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম:পদ্মা সেতু কোরবানির আয়োজনে অভাবনীয় সুযোগ তৈরি করেছে এবং কোরবানি কেন্দ্রিক অর্থনীতিতে ব্যাপক প্রভাব ফেলেছে বলে জানিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেছেন।

নিজস্ব প্রতিবেদক:বর্তমান যুগ হচ্ছে আইটি এবং বায়োটেকনলজির যুগ। আমরা এটির গুরুত্ব বুঝতে শুরু করেছি কাজেই স্থানীয় জাতগুলোর জীন সংরক্ষণের জন্য কৃষি-মৎস্য-প্রাণিসম্পদ সেক্টরের আপডেটেড তথ্যগুলি কাজে লাগিয়ে আমরা যাতে দীর্ঘমেয়াদে সংরক্ষণ করতে পারি সে লক্ষেই "জাতীয় জীন ব্যাংক প্রকল্প"। বর্তমান সরকারের একটি মহৎ উদ্যোগ হচ্ছে “জাতীয় জীন ব্যাংক স্থাপন প্রকল্প" আমরা এখন সে পথেই হাঁটছি। জীবন বাঁচাতে এবং জীবন সাজাতে বায়োটেকনোলজি ব্যবহার এখন গুরুত্বপূর্ণ হয়ে দাড়িয়েছে।