ড. মো. আনোয়ার হোসেন:সমলয় বা সিনক্রোনাইজড চাষ-একটি নতুন ধারণা। বিশেষত বাংলাদেশে। গত বোরো মওসুমে অনানুষ্ঠানিক ভাবে কৃষি মন্ত্রণালয়ের তত্ত্বাবধানে ১২টি উপজেলায় “সিনক্রোনাইজড চাষাবাদ” এর আওতায় প্রতিটি এলাকায় ৬০ বিঘা জমিতে উক্ত চাষাবাদ কার্যক্রম শুরু করা হয়। চলমান বোরো মওসুমে আরো বিস্তৃত পরিসরে ৬১টি জেলায় এই কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। বাস্তবায়নের দায়িত্বে আছে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর। বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি) বিভিন্ন ভাবে কারিগরি সহযোগীতা প্রদান করছে। প্রাথমিক পর্যায়ে বাস্তবায়নে কিছু সমস্যা হলেও সমলয় চাষাবাদ একটি কার্যকরী উদ্যোগ। সমন্বিতভাবে এই ধারণাটি বাস্তবায়ন করা হলে কৃষি যান্ত্রিকীকরণের পথ অনেকটাই টেকসই হবে।

নাহিদ বিন রফিক: নারীর হাতে কৃষির গোড়াপত্তন। অনেক আগের কথা। আদিযুগের কৃষি ছিল প্রকৃতির ওপর নির্ভর। তখনকার মানুষ জীবিকার জন্য বনজঙ্গলে ঘুরে বেড়াতেন। পশু শিকার এবং ফলমূল সংগ্রহ করাই ছিল তাদের প্রধান কাজ। এগুলো করতেন পুরুষরা আর নারীরা সন্তান লালন-পালনের পাশাপাশি ফলের বীজ মাটিতে পুঁতে রাখতেন। বীজ হতে গজানো চারা বড় হয়ে যখন ফল ধারণ করত তখন তারা এ কাজে হতেন আরো উৎসাহিত। সে থেকেই কৃষিকাজে নারীর পথ চলা। অভিরাম চলছে বংশপরম্পরায়। পুরুষশাসিত সমাজে স্বীকৃতি না পেলেও কৃষিতে তাদের অবদান ঢের বেশি। বিশেষ করে সবজি চাষে।

এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম:শীতের শেষে বসন্তের এই সময়টি মাছ চাষীদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। শীত পরবর্তী ব্যবস্থাপনাগুলো মাছ চাষীদের সঠিকভাবে পালন করা প্রয়োজন। মাঠ পর্যায়ে মাছ চাষীদের প্রয়োজনীয় কর্মতৎপরতা ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গেছে। শীতে তাপমাত্রা কম থাকায় মাছের খাবারের চাহিদা কম ছিল দুপুরের সময় খানিকটা রোদ পাওয়ায় তখন মাছকে অল্প পরিমাণ খাদ্য দেওয়া হয়েছে। তবে এখন ফাল্গুন মাস শুরু হওয়ায় ধীরে ধীরে তাপমাত্রা বাড়তে শুরু করেছে মাছেরও চঞ্চলতা বৃদ্ধি পাচ্ছে । এসময় মৎস্য চাষীদের মাছের পরিচর্যা সম্পর্কিত কিছু পরামর্শ দিচ্ছেন নারিশ পোল্ট্রি এন্ড হ্যাচারী লিঃ সিনিয়র ম্যানেজার (সেলস এন্ড সার্ভিস) জনাব ওবায়দুল ইসলাম।

কৃষিবিদ ড. এম. মনির উদ্দিন:বাংলাদেশের অর্থনীতির গতি যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে তাতে ব্রিটেনের অর্থনৈতিক গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর ইকোনমিক অ্যান্ড বিজনেস রিসার্চের রিপোর্ট অনুযায়ী ২০৩৫ সাল নাগাদ বাংলাদেশ ১৯৩টি দেশ তথা বিশ্বের মধ্যে ২৫তম অর্থনীতির দেশ হিসাবে ঘুরে দাড়াবে। ২০২০ সালে করোনা মহামারীর মধ্যেও বাংলাদেশ বিদেশের বাজারে পোশাক রপ্তানীতে ভিয়েতনামকে পিছনে ফেলে দিয়েছে। এ সময়ে ভিয়েতনাম পোশাক রপ্তানী করেছে ২৭ দশমিক ৫৭ বিলিয়ন ডলারের এবং একই সময়ে পোশাক রপ্তানী করে বাংলাদেশ আয় করেছে ২৯ দশমিক ২৩ বিলিয়ন ডলার। প্রবাসীদের রেমিট্যান্স পাঠানো বেড়ে যাওয়ায় ২০২০ সালের শেষে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ দাড়িয়েছে ৪৩ দশমিক ১৭ বিলিয়ন ডলার। এভাবেই দেশের প্রতিটি সেক্টরে চলছে উন্নয়নের অগ্রযাত্রা।

ড. মো. হুমায়ুন কবীর: সারা বিশ্ব যখন করোনা ভাইরাসের আক্রমণে টালমাটাল সেই সময়ে প্রতিষেধক হিসেবে একটি ভ্যাকসিন যে কত প্রত্যাশিত ছিলো সেটি আর কাউকে বলে বোঝানোর প্রয়োজন নেই। শুধু আমাদের বাংলাদেশেই নয় সারাবিশ্বই তীর্থের কাকের মতো অপেক্ষা করছিল একটি ভ্যাকসিনের জন্য। ঠিক এমনি সময়ে বিশ্বের প্রথম ভ্যাকসিন প্রাপ্তির কয়েকটি দেশের তালিকায় স্থান পেয়ে যায় বাংলাদেশ। আর হঠাৎ করেই যে এ তালিকায় স্থান পেয়ে গিয়েছে তা নয়। সেজন্য অনেক কাঠ খড় পোড়াতে হয়েছে। এ কাঠ খড় পুড়িয়েছেন বাংলাদেশের সদাশয় সরকার। যে সরকারের প্রধান হলেন বঙ্গবন্ধু কন্যা মানবতার মা জননেত্রী শেখ হাসিনা। কারণ তিনি অর্থের চেয়ে জনস্বাস্থ্য ও মানুষের জীবনকে বেশি মূল্য দিয়ে থাকেন সবসময়।  

বিজনেস প্রতিনিধি:সেরা মানের ইস্ট ও ব্যাকটেরিয়ার উৎপাদনের ক্ষেত্রে লালিম্যান্ড বিশ্বের সেরা একটি কোম্পানি। Lallemand-এর ব্যবসার মূল ভিত্তি হলো গুণগতমানের ইস্ট ও ব্যাকটেরিয়া উৎপাদন। এই ইস্ট ও ব্যাকটেরিয়াকে কেন্দ্র করে Lallemand-এর ১৩ টি  বিভাগের সৃষ্টি হয়েছে যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য একটি হল এনিমেল নিউট্রিশন। বাংলাদেশে কোম্পানিটির এ বিভাগটির কান্ট্রি ম্যানেজার হিসেবে সফলভাবে দায়িত্ব পালন করছেন জনাব খুরশিদ আনোয়ার।